বাংলায় বার্ড ফ্লু’র হানা? সতর্ক থাকবেন যেভাবে

কলকাতা: বাংলায় ঢুকে গেল বার্ড ফ্লু? মাংস ডিম খাওয়া কি ছেড়ে দেবেন নাকি? স্বাস্থ্যসচিব পরিস্কার জানিয়ে দিলেন গাইডলাইন। কতটা সতর্ক থাকা উচিত এই মূহুর্তে? এবার…

কলকাতা: বাংলায় ঢুকে গেল বার্ড ফ্লু? মাংস ডিম খাওয়া কি ছেড়ে দেবেন নাকি?
স্বাস্থ্যসচিব পরিস্কার জানিয়ে দিলেন গাইডলাইন। কতটা সতর্ক থাকা উচিত এই মূহুর্তে?

এবার কি মাংস খাওয়া পুরোপুরি বন্ধ৷ খেলেও মানতে হবে বিশেষ নিয়ম? বাংলায় বার্ড ফ্লুতে কতজন আক্রান্ত? কী জানাচ্ছে স্বাস্থ্যমন্ত্রক? পরপর দুই শিশুর বার্ড ফ্লু আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে রাজ্যে। কলকাতায় এসে আক্রান্ত হয়েছিল এক আড়াই বছরের শিশু। আর এক চার বছরের শিশু আক্রান্ত হয় মালদহের কালিয়াচকে। দীর্ঘ চিকিৎসার পর সুস্থ আছে তারা। যদি মাস তিনেক আগে সংক্রমণ ছড়িয়েছিল, তবে সেই খবর প্রকাশ্যে আসতে উদ্বেগ বেড়েছে অনেকের মধ্যে। তাহলে এই অবস্থায় পোলট্রির ডিম বা মাংসে লুকিয়ে নেই তো বিপদ? মাংস বা ডিম খাওয়া কি বন্ধ হবে পুরোপুরি? বৃহস্পতিবার এই বিষয়ে বিবৃতি দিয়েছেন রাজ্যের স্বাস্থ্যসচিব নারায়ণস্বরূপ নিগম। ভয় না পেয়ে মন দিয়ে দেখুন কি বলছেন তিনি৷ স্বাস্থ্যসচিব জানিয়েছেন, মালদহে এক শিশুর ইনফ্লুয়েঞ্জা হয়েছিল। মালদহ মেডিক্যাল কলেজের পর নীলরতন সরকার মেডিক্যাল কলেজে সেই শিশুর চিকিৎসা হয়। গত মার্চ-এপ্রিলে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ভাইরোলজিতে জিনোম সিকোয়েন্সিংয়ের জন্য পাঠানো হয়েছিল নমুনা। পরীক্ষায় H9N2 ভাইরাসের স্ট্রেন পাওয়া যায় শিশুর দেহে। প্রথম নমুনা পরীক্ষা রিপোর্টে ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া যায়, পরের বার পরীক্ষা করলে রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। শিশু এখন সুস্থ আছে বলেও জানিয়েছে স্বাস্থ্য দফতর। আর এক শিশু কলকাতা থেকে ফেব্রুয়ারি মাসের শেষে যখন অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নে ফিরে যায়, তখন তার দেহে H5N1 স্ট্রেনের এভিয়ান ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস পাওয়া যায়।

দুই শিশুর সংস্পর্শে আসা কোন‌ও ব্যক্তিদের শরীরে ভাইরাস পাওয়া যায়নি বলে জানান স্বাস্থ্যসচিব। ইনফ্লুয়েঞ্জা লাইক ইলনেস সংক্রান্ত যে সমীক্ষা হয় তাতেও কেসের সংখ্যা বেড়েছে এমন কিছু পাওয়া যায়নি। এর মানে এখনও পর্যন্ত স্বস্তির খবর৷ তাহলে মাংস ডিম খাওয়ায় কোনও বাধা নেই তো? এক্ষেত্রে স্বাস্থ্যসচিব জানিয়েছেন, পোলট্রি বার্ডের মধ্যে কিছু ধরা পড়েনি। খুব কড়া নজরদারি চালিয়েও কোন‌ও হাঁস-মুরগির মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি। তাই আতঙ্কিত হ‌ওয়ার কিছু নেই বলেই মন্তব্য করেছেন তিনি। তাই স্বাস্থ্য দফতরের তরফে এখনও পর্যন্ত হাঁস-মুরগির মাংস, ডিম খাওয়া নিয়ে কোন‌ও নিষেধাজ্ঞা নেই। সতর্কবার্তাও নেই। মালদহ থেকে ৩৯০টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে, তাতেও এভিয়ান ইনফ্লুয়েঞ্জার অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। এই পরিস্থিতিতে তাই ডিম, মাংস খাওয়ার ক্ষেত্রে কোনও নিষেধাজ্ঞা নেই বলে জানিয়েছেন প্রাণিসম্পদ দফতরের সচিব বিবেক কুমার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *