‘প্রিয়’ ফুচকায় ক্যানসারের বিষ! মন খারাপ করা খবর

কলকাতা: কোথাও ফুচকা, কোথাও পানিপুরি… কেউ আবার ভালবেসে বলেন গোলগাপ্পা। নাম তার যাই হোক না কেন খাবারটা সেই এক। জায়গা বিশেষে পরিবেশন করার পার্থক্য রয়েছে এইটুকুই…

কলকাতা: কোথাও ফুচকা, কোথাও পানিপুরি… কেউ আবার ভালবেসে বলেন গোলগাপ্পা। নাম তার যাই হোক না কেন খাবারটা সেই এক। জায়গা বিশেষে পরিবেশন করার পার্থক্য রয়েছে এইটুকুই যা… টক ঝাল তেঁতুল জলের সঙ্গে মুখে পুরে দিলেই হল… ফুচকা মানেই অমৃত। বাঙালির ইমোশন। যদিও বাঙালি বললে ভুল বলা হবে, কারণ এদেশের জনপ্রিয় একটি স্ট্রীট ফুড হল ফুচকা।

তবে এবার প্রাণের প্রিয় সেই ফুচকার বিরুদ্ধে উঠেছে মারাত্মক অভিযোগ। সম্প্রতি ফুচকা নিয়ে খাদ্য সুরক্ষা দপ্তরের তরফে একটি রিপোর্ট পেশ করা হয়েছে, যা দেখে চোখ কপালে ওঠার জোগাড়। জানা গেছে, সম্প্রতি ২৬০ টি ফুচকার নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছিল খাদ্য সুরক্ষা দপ্তরের তরফে। যার মধ্যে ২২ শতাংশই নির্দিষ্ট নিয়ম মেনে তৈরি করা হয়নি। অত্যাধিক কৃত্রিম রং ও ক্যানসারজনিত রাসায়নিক মেশানো হয়েছে এই খাবারে, এমনটাই অভিযোগ এসেছে সামনে।

খাদ্য সুরক্ষা দফতরের তরফে জানানো হয়েছে, ফুচকার নমুনা পরীক্ষা করে একাধিক রাসায়নিকের খোঁজ পেয়েছেন গবেষকরা। দেখা গিয়েছে, এর মধ্যে ব্রিলিয়ান্ট ব্লু, টারট্রাজান ও সানসেট ইয়েলোর মতো রং মেশানো হচ্ছে। এই রংগুলি পেটের যে শুধু ক্ষতি করে তা নয়‌। পাশাপাশি ক্যানসার ঘটাতে পারে। অর্থাৎ কারসিনোজেনিক এলিমেন্ট রয়েছে এর মধ্যে। এই খবর প্রকাশ্যে আসার পর থেকেই ফুচকাপ্রেমীদের কপালে চিন্তার ভাঁজ।

সম্প্রতি সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে খাদ্য সুরক্ষা কমিশনার শ্রীনিবাস কে জানান, কর্নাটকের সব জেলা থেকেই অভিযোগ জমা পড়েছে খাদ্য সুরক্ষা দফতরে। ফুচকার গুণগত মান ও হাইজিন নিয়ে তাদের দফতরে অভিযোগ জমা পড়ার পরেই ব্যবস্থা নিতে শুরু করে খাদ্য সুরক্ষা দফতর। সংগ্রহ করা হয় ফুচকার নমুনা। তার পরই দেখা গিয়েছে পরিস্থিতি এমন।

কর্নাটকে নমুনা পরীক্ষায় দেখা গিয়েছে, ফুচকা যাতে দেখতে যাতে সুন্দর হয় ও গ্রাহকদের কাছে আকর্ষণীয় করে তোলা যায় তার জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে ‘রোডিমাইন-বি’। কৃত্রিম এই রং ক্যানসার সৃষ্টিকারী এক উপাদান। ক্য়ানসারের সম্ভাবনাকে বাড়িয়ে তোলে। এই একই উপাদান গোবি মাঞ্চুরিয়ান, কটন ক্যান্ডিকেও গ্রাহকদের কাছে আকর্ষণীয় করে তুলতে ব্যবহার করা হয়েছে। তাই এই খাদ্য পণ্যগুলির উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে কর্নাটক সরকার। এবার কি ফুচকার পালা?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *