কী কারণে ত্রিপুরা নির্বাচনের প্রভাব পড়বে বাংলায়? কী ভাবছেন রাজনীতির কারবারিরা?

কী কারণে ত্রিপুরা নির্বাচনের প্রভাব পড়বে বাংলায়? কী ভাবছেন রাজনীতির কারবারিরা?

নিজস্ব প্রতিনিধি: নজরে ত্রিপুরা। বিধানসভা নির্বাচন ঘিরে সেখানে এখন টানটান উত্তেজনা। কে জিতবে? বাঁকে হারবে তা নিয়ে চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ। আর  বিধানসভা  নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ত্রিপুরায় যখন রাজনৈতিক উত্তাপ বেড়েই  চলেছে তখন তার একটা আঁচ এসে পড়েছে বাংলাতেও। সেটা প্রতিদিনই উপলব্ধি করা যাচ্ছে। তাই স্বাভাবিক কারণেই বঙ্গ রাজনীতির কারবারিদের বিশেষ নজর রয়েছে উত্তর-পূর্ব ভারতের এই ছোট্ট রাজ্যটির নির্বাচনী ফলাফলের দিকে। সেখানে কি ফলাফল হয় তা নিয়ে বাংলার রাজনীতি সচেতন মানুষের যথেষ্ট আগ্রহ রয়েছে। রাজনৈতিক মহল মনে করছে ত্রিপুরায় যে ফলাফলই হোক না কেন, তার প্রভাব পড়বে পশ্চিমবঙ্গের পঞ্চায়েত নির্বাচনে। কি কি কারণে এমনটা মনে করা হচ্ছে? এই ভাবনার পিছনে একাধিক ফ্যাক্টর কাজ করছে।

যদি ত্রিপুরায় বিজেপি ফের জিতে ক্ষমতায় আসে তাহলে পঞ্চায়েত নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি রীতিমতো কলার তুলে ময়দানে নামবে। কারণ পশ্চিমবঙ্গের মতো ত্রিপুরার একটা বড় অংশ বাংলা ভাষায় কথা বলে। দুটি রাজ্যের সাংস্কৃতিক দিক দিয়ে বহু মিল রয়েছে। তাই কংগ্রেস, তৃণমূল বিজেপি বা সিপিএমের বঙ্গ নেতৃত্ব ত্রিপুরায় প্রচার করতে গিয়েছেন। ত্রিপুরায় প্রচারে বারবার এক টুকরো বাংলা উঠে এসেছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, দিলীপ ঘোষ, শুভেন্দু অধিকারী, অধীর চৌধুরী, মহম্মদ সেলিম, মীনাক্ষি  মুখোপাধ্যায়, দীপ্সিতা ধর-সহ দলমত নির্বিশেষে বাংলার একঝাঁক নেতা-নেত্রী ত্রিপুরায় ভোটপ্রচারে গিয়েছেন।

 ত্রিপুরার  নির্বাচন সংক্রান্ত সমস্ত খবর বাংলার মিডিয়ার শিরোনামে উঠে আসছে। তাই ত্রিপুরায় বিজেপি এবারও যদি বাজিমাত করে তাহলে পশ্চিমবঙ্গে পঞ্চায়েত নির্বাচনে নিঃসন্দেহে ব্যাকফুটে চলে যাবে বাম-কংগ্রেস। তখন তৃণমূল নতুন উদ্যমে ফের প্রচার করবে এই বলে যে, একমাত্র তারাই বিজেপিকে হারাতে পারে। বাম-কংগ্রেসের পক্ষে সম্ভব নয় বিজেপিকে হারানো। সেক্ষেত্রে  পঞ্চায়েত নির্বাচনে তৃণমূলের সঙ্গে মূল লড়াই হবে বিজেপিরই। তখন দুটি দলই রাজনৈতিকভাবে লাভবান হবে। লোকসভার আগে বিজেপি যেমন বাড়তি অক্সিজেন পাবে, একই ভাবে তৃণমূলও চব্বিশের মেগা নির্বাচনে আরও বেশি আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে সাফল্য ধরে রাখার লড়াইয়ে নামবে। কিন্তু যদি বাম-কংগ্রেস ত্রিপুরায় জয়লাভ করে তখন আবার ছবিটা বদলে যাবে। সেক্ষেত্রে পঞ্চায়েত নির্বাচনে বাম-কংগ্রেস রীতিমতো কোমর বেঁধে নামবে। সবচাইতে বড় কথা সেই পরিস্থিতিতে পশ্চিমবঙ্গে সংখ্যালঘু ভোটের একটা বড় অংশ বাম-কংগ্রেসে ফিরে আসতে পারে। আর সেই সূত্রে যদি বাম-কংগ্রেস পঞ্চায়েতে ‘মিরাক্যাল’ দেখাতে পারে তার প্রভাব আগামী লোকসভা নির্বাচনে পড়তে বাধ্য। তাই এটা স্পষ্ট ত্রিপুরায় যে ফলাফলই হোক না কেন তার পরোক্ষ প্রভাব বঙ্গ রাজনীতিতে অবশ্যই পড়তে চলেছে। সেক্ষেত্রে ত্রিপুরায় কোন দল শেষপর্যন্ত বাজিমাত করে এখন সেদিকেই চোখ থাকবে রাজনৈতিক মহলের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *