নিজের গড় ছাড়া অন্যত্র ফ্লপ! দিল্লিতে কী জবাব দেবেন শুভেন্দু?

বিজেপি নেতৃত্বের জরুরি তলব কেন্দ্রীয় বিজেপি নেতৃত্বের জরুরি তলব পেয়েই বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী-সহ রাজ্যের নবনির্বাচিত গেরুয়া সাংসদরা পৌঁছে গিয়েছেন দিল্লিতে। আগামী দিনে সবাই কীভাবে…

BJP leads in Nandigram Shuvendu Adhikari BJP performance

বিজেপি নেতৃত্বের জরুরি তলব

কেন্দ্রীয় বিজেপি নেতৃত্বের জরুরি তলব পেয়েই বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী-সহ রাজ্যের নবনির্বাচিত গেরুয়া সাংসদরা পৌঁছে গিয়েছেন দিল্লিতে। আগামী দিনে সবাই কীভাবে চলবেন তা নিয়ে মূলত আলোচনা হওয়ার কথা থাকলেও সেই বৈঠকে চোখা চোখা প্রশ্নের মুখে পড়তে পারেন শুভেন্দু ও সুকান্ত। কেন বাংলায় বিজেপির ফল এত খারাপ হল তা তাঁদের কাছ থেকে কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব জানতে চাইবেন বলেই খবর। সেক্ষেত্রে সবচেয়ে অস্বস্তির মধ্যে পড়বেন শুভেন্দু।

কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে সুপারিশ ছিল শুভেন্দুর

কিন্তু কেন? ঘটনা হল চব্বিশের লোকসভা নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গে এবার যারা বিজেপির প্রার্থী হয়েছেন তাঁদের বড় অংশের জন্য  অধিকারীর, এমনটাই খবর। এবার প্রার্থীদের বড় অংশকে শুভেন্দুর আবেদনের ভিত্তিতেই চূড়ান্ত করেছিলেন কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব, বিজেপি সূত্রে এ তথ্য জানা গিয়েছে। রাজ্য বিজেপির প্রাক্তন সভাপতি তথা দলের অন্যতম প্রধান স্তম্ভ দিলীপ ঘোষের কেন্দ্র বদলের ক্ষেত্রেও শুভেন্দুর হাত রয়েছে বলে সবাই মনে করেন। আর বর্ধমান-দুর্গাপুর লোকসভা কেন্দ্রে বড় ব্যবধানে হারের পরেই প্রকাশ্যে কারও নাম না করে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন দিলীপ। তাঁর নিশানায় মূলত যে রয়েছেন শুভেন্দু, সেটা সকলেই বুঝতে পারছেন।

শুভেন্দুর তৎপরতা

বসিরহাট লোকসভা কেন্দ্রে রেখা পাত্রের মতো এক গ্রামবাসীকে প্রার্থী করার পিছনেও শুভেন্দুর তৎপরতা ছিল। এর পাশাপাশি তমলুকে অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়, মেদিনীপুর কেন্দ্রে অগ্নিমিত্রা পাল, কৃষ্ণনগরে ‘রাজমাতা’ অমৃতা রায়, ব্যারাকপুরে অর্জুন সিং, ঘাটালে অভিনেতা হিরণ চট্টোপাধ্যায়-সহ অনেকেই লোকসভায় প্রার্থী হয়েছেন শুভেন্দুর তৎপরতায়।

সূত্রের খবর, অর্জুন সিংকে নাকি দলে নিতেই ফেরাতেই আপত্তি তুলেছিলেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি সুকান্ত মজুমদার। কিন্তু শুভেন্দুর জেদের কাছে হার মানতে হয়েছিল সুকান্ত তথা অন্যান্য নেতৃত্বকে। এরপর ফল প্রকাশ হতেই দেখা যায় পরাজিত হয়েছেন রেখা, অর্জুন, অগ্নিমিত্রা, হিরণ, অমৃতারা। শুভেন্দুর সুপারিশে যারা প্রার্থী হয়েছিলেন তাঁদের জিতিয়ে আনার মূল দায়িত্ব তো তাঁরই ছিল। কিন্তু সে কাজে ব্যর্থ হয়েছেন তিনি। আসলে শুভেন্দু ভেবেছিলেন যদি সেই সমস্ত প্রার্থী জিতে যেতেন তাহলে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে তাঁর নম্বর আরও বেড়ে যেত। তবে বিরোধী দলনেতার সেই আশা পুরনো হয়নি।

কী জবাব দেবেন শুভেন্দু?

স্বাভাবিকভাবেই কেন্দ্রীয় বিজেপি নেতৃত্বের সামনে এই সমস্ত প্রসঙ্গ উঠলে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। সেক্ষেত্রে  কী জবাব দেবেন শুভেন্দু? তাঁর জবাব দেওয়ার জায়গা মূলত একটাই, তমলুক ও কাঁথি লোকসভা নির্বাচনে দুই বিজেপি প্রার্থীর জয়। এছাড়া শুভেন্দুর পক্ষে কার্যত আর কিছু নেই।

গতবার পশ্চিমবঙ্গে ১৮টি আসনে জিতেছিল বিজেপি। এবার আসন সংখ্যা বাড়া তো দূরের কথা, তা ছ’টি কমে গেল তাদের। এর দায় নেবেন কে বা কারা? সকলেই মনে করছেন মূলত শুভেন্দুকেই এই ব্যর্থতার দায় নিতে হবে। কারণ গোটা লোকসভা নির্বাচন পর্বে পশ্চিমবঙ্গে দলের সমস্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে শুভেন্দুকে ‘ফ্রি হ্যান্ড’ দিয়েছিলেন কেন্দ্রীয় বিজেপি নেতৃত্ব, এমনটাই মনে করা হয়। কিন্তু তার যোগ্য রিটার্ন কিন্তু পেল না বিজেপি। গতবার উত্তরবঙ্গে সাতটি আসনে জয় পেয়েছিল বিজেপি।

এবার সেটি কমে ছয় হয়েছে। কিন্তু তাতে শুভেন্দুকে আলাদা করে কৃতিত্ব দেওয়ার কিছু নেই। কারণ বহুদিন ধরেই উত্তরবঙ্গ বিজেপির শক্ত ঘাঁটিতে পরিণত হয়েছে। একুশের বিধানসভা নির্বাচনে রাজ্য জুড়ে বিজেপির ফল খারাপ হলেও উত্তরবঙ্গে তারা মোটামুটি বলার মতো ফল করেছে। সবমিলিয়ে এই লোকসভা নির্বাচনে শুভেন্দুকে যতটা হাঁকডাক করতে দেখা গিয়েছিল, তার সুফল পায়নি রাজ্য বিজেপি। তাই শুক্রবারের বৈঠকে এই সমস্ত বিষয় নিয়ে কাটাছেঁড়া হলে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না।

Politics: Suvendu Adhikari Delhi Response. Shuvendu Adhikari faces scrutiny in Delhi for BJP’s poor performance in West Bengal. Despite his influence in candidate selection, many lost. With only victories in Tamluk and Kanthi, what answers will he provide to central leadership?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *